blogsboard

#study-techniques #m.c.q-hacks #exam-hacks

13 Feb, 2022

এমসিকিউ তে ভাল করার উপায়

i) মূল বইয়ের বিকল্প নেই :

 প্রথমত,তোমার মূল বইটা খুব ভালো মত পড় । ইম্পরট্যান্ট লাইনগুলো আন্ডারলাইন করে রাখ , মার্কার ব্যবহার করতে পার । এতে সহজে ইনফরমেশনগুলো মনে থাকবে। 

ii) বারবার পড়া :

 বারবার পড়া বা রিভিশন দেয়াটা দীর্ঘদিন মনে রাখতে খুব বেশি সাহায্য করে । MCQ এর জন্য এই টেকনিকটা খুব কাজে  দেয় । একটা অধ্যায় অন্তত তিনবার পড়া উচিত। MCQ পড়ার ক্ষেত্রে সবথেকে ভাল ব্যাপার হল যেটা যতবার ভুলবে সেটা ততবার পড়া।  

iii) ফ্লাশকার্ডঃ

 জরুরি ইনফরমেশনগুলো  ( বিভিন্ন সাল, গঠন উপাদান, ম্যাথম্যাটিকাল সুত্র ইত্যাদি) নিয়ে ছোট ছোট ফ্লাশকারড তৈরি করে রাখা যায়, তাতে একটা পারটিকুলার ইনফো খুুজতে পুরা বই খুজতে সময় নষ্ট হয় না। ফ্লাশকার্ড এর বদলে ইনফো গুলো ডায়েরীতে ও লিখে রাখা যায়।

iv) অনেক অনেক প্র্যাকটিস :

 MCQ এ বস হওয়ার জন্য প্র্যাকটিস খুব দরকারি। মূল বই পড়ার পর টেস্টপেপার এর অধ্যায়ভিত্তিক MCQ সলভ করতে হবে। এরপর সলভ করতে হবে পাস্টপেপার বা বিগত বছরের প্রশ্ন। পেন্সিল দিয়ে দাগালে পরেরবার মুছে আবার প্র্যাকটিস করতে পারবে।

v) নিজেকে চ্যালেঞ্জ করো :

 MCQ এর সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হল নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করতে পারা। এজন্য একটু টেকনিক্যালি প্রাকটিস  করতে হবে। অধ্যায় ভিত্তিক বা টেস্ট পেপার প্রথমবার সলভ করার সময় যতটা সময় লাগে দিতে হবে । দ্বিতীয়বার সলভ করার সময় প্রতি ৩০/ ৪০ টার জন্য নির্দিষ্ট সময় বেঁধে নাও ,যেমন ৩০ মিনিট । এভাবে প্রতিবার প্রাকটিসের সময় টাইম লিমিট কমাতে থাকো। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সঠিকভাবে উত্তর দেয়ার চেষ্টা করো। 

vi) লাইন-টু-লাইন না পড়াঃ

 এমসিকিউ তে ভাল করতে হলে পুরো বই লাইন-টু-লাইন না পড়ে শুধু কি-পয়েন্টগুলো পড়ে যেতে হয়। দাগিয়ে দাগিয়ে পড়ার অভ্যাস ভাল। তবে সেটাও বুদ্ধি করে করতে হবে। সবকিছু দাগিয়ে পড়া যাবে না। শুধু দাগানো পড়াগুলো পড়তে থাকো রিডিং পড়ার মত। এভাবে প্রতিদিন পড়তে থাকলে পরীক্ষার সময় চোখের সামনে প্রশ্নের উত্তরগুলো ভাসবে। 

vii) এমসিকিউ সমাধানের সময় কোন একটা বিশেষ প্রশ্নকে জামাই আদর না করাঃ 

অনেক সময় দেখা যায়, একটা এমসিকিউ এর সমস্যা সমাধান করতে অনেক সময় লেগে যাচ্ছে কিন্তু তারপরেও তুমি সেটা সল্ভ করার চেষ্টা করেই যাচ্ছ। এক্ষেত্রে যেটা মনে রাখবে, একটা এমসিকিউ এর পিছনে ১ মিনিটের বেশি সময় লস করা মানে তুমি কম হলেও ৪-৫ টা এমসিকিউ সলভ করতে পারবে কারণ এমন অনেক এমসিকিউ আছে যেগুলো একবার দেখেই করে ফেলা সম্ভব। তাই আবেগী হয়ে একটা বিশেষ প্রবলেমকে জামাই আদর করলে চলবে না। 

viii) MCQ প্রশ্ন গুলোকে ক্যাটাগরিতে ভাগ করাঃ

সিরিয়ালি এমসিকিউ প্রশ্ন সমাধান না করে সবগুলো প্রশ্নকে ক্যাটাগরিতে ভাগ করে ফেলা। যেমন- কিছু প্রশ্ন আছে যেগুলো ৫ সেকেন্ডে উত্তর দেওয়া সম্ভব, কিছু করা সম্ভব ৩০ সেকেন্ডে আবার কিছু প্রশ্ন সমাধান করতে ২-৩ মিনিটের বেশি সময় লাগে। প্রথমেই সব প্রশ্ন পড়ে ভাগ করে ফেলতে হবে এবং এই ক্যাটাগরির ভিত্তিতে যেগুলো তাড়াতাড়ি করা সম্ভব সেগুলো আগে করতে হবে।

ix) বুঝে শুনে এন্সার করোঃ

MCQ এন্সার করার সময় কখনো দেখা যায় আমরা সিরিয়ালি অনেকগুলা প্রশ্নের উত্তর পারিনা, সেক্ষেত্রে Panicked হয়ে পরের উত্তর গুলা ভুলে গেলে বা ভুল দাগালে হবেনা। ওইসব গুলা ঠান্ডা মাথায় পরে দাগানো টা গুরুত্বপূ্র্ন। 

 x) অজানা প্রশ্ন কিভাবে এন্সার করবোঃ

 কিছু প্রশ্নের উত্তর আমরা একেবারেই জানি না। সেক্ষেত্রে ৪ টা অপশন ই খুব ভালো করে পড়তে হবে এবং ওই চ্যাপ্টার সম্পর্কে তোমার যদি জ্ঞান থাকে তাহলে সেখান থেকেই তুমি বাদ দিতে পারবে  ,  তারপর ও না পারলে খ বা গ থেকে সিলেক্ট করো, উত্তর বেশিরভাগ খ বা গ ই হয়।     

Get Free Live Classes and Tests on the Sohopathi App